বিনোদন

‘আপনার স্তনের মাপ কত?’ সরাসরি জিজ্ঞেস করা হয় সায়ান্তনীকে, যোগ্য জবাব দিলেন অভিনেত্রী

মেয়েরা নাকি ভগবানের দান। কিন্তু একটা কথা ভেবে দেখুন তো মেয়েরা না থাকলে আপনারা আমরা পৃথিবীতে আসতে পারতাম কি? আচ্ছা মেয়েরা কি পৃথিবীতে শুধু সন্তান জন্ম দিতেই আর সন্তান প্রতিপালন করতেই পৃথিবীতে এসেছে। মেয়েদের স্তন কিসের জন্য? শুধুই সন্তান প্রতিপালনের জন্য?এতে আবেগ থাকে, কিছু অনুভূতি থাকে এবং এই সবটাই হরমোনাল। আমাদের চাহিদা, অভিব্যক্তি সবটাই হরমোনের উপর নির্ভরশীল। কিন্তু কোন সময় যখন এটাকে কন্ট্রোল করা সম্ভব হয় না। অভিনেত্রী সায়ন্তনী ঘোষকে এবারে একজন জিজ্ঞাসা করলেন অদ্ভুত প্রশ্ন। কি সেই প্রশ্ন?

অভিনেত্রীকে সরাসরি কিছু প্রশ্ন জিজ্ঞেস করা হয়। বলা হয় যে তার স্তনের মাপ কত? এখানেই শেষ নয়, তাকে এও জিজ্ঞাসা করা হয় সে কত সাইজের অন্তর্বাস পরিধান করে? এখানেই থেমে যাননি তিনি এরপরে তার কাপের সাইজ উল্লেখ করেন সেই ব্যাক্তি।

এই কথোপকথন সম্পর্কে অভিনেত্রী নিজেই জানান। অভিনেত্রী সায়ন্তনী লেখেন, “গতকাল কথোপকথন সেশনে এক ব্যক্তি আমায় আমার অন্তর্বাসের সাইজ জিজ্ঞাসা করেছিলেন। আমি তাঁকে উপযুক্ত জবাব দিয়েছি। তারপরেও আমি আরও কিছু বলতে চাই। যদিও বডি শেমিং বিষয়টিই খুব খারাপ। তবুও একটা বিষয় আমার মাথায় কিছুতেই ঢুকছে না, যে মহিলাদের স্তনের প্রতি কী এত মোহ? এর মাপ কত? কেন এটা মেনে নেওয়া যায় না যে এটাও শরীরের একটা অঙ্গ।” এরপরে সায়ন্তনী রেগে গিয়ে আরও লেখেন, “আমি জানি এটা মাতৃত্বের বিষয়, বা নির্দিষ্ট কোনও আবেগের বিষয়, কিন্তু শরীরের অন্য অঙ্গের বিষয় তো এটা হয়না। আমি জানি না, স্তনের প্রতি এ জাতীয় দৃষ্টিভঙ্গি আমাদের মতো কিছু মহিলাকে অস্বস্তিতে ফেলে দেয়। আমার মাঝে মাঝে মনে হয় কেন আমার স্তন ছাড়া বুক হল না? আমাদের মধ্যে কিছু লোকজন আবার ইমপ্লান্টের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন।”

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Sayantani (@sayantanighosh0609)

টেলিভিশনের একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী সায়ন্তনী ঘোষ। কিন্তু সমাজের কিছু ঘৃণ্য পুরুষের প্রতি উদ্যেশ্য করে সায়ন্তনী এরপরে লেখেন,”পুরুষদের এই অধিকার কে দেয়? পুরুষরা কেন মনে করে যে তাঁরা কোনও মহিলার সঙ্গে এভাবে কথা বলতে পারেন? হয়তবা এটা আমাদেরই দোষ। মহিলারাই বা কেন এগুলি মেনে নেন? কেন উত্তর দেন না? প্রায়শই আমরা এবিষয়ে লজ্জা বোধের কারণে পুরুষদের মুখোমুখি হতে, কিংবা এই জাতীয় বিষয়গুলি আমরা এড়িয়ে চলি।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button