বিনোদন

বলিউডকে বিদায় জানিয়ে ভালোই আছেন সমীরা রেড্ডি, মনের কথা জানালেন নিজেই

বলিউডের এক সময়ের অন্যতম নায়িকা হিসেবে নিজেকে তুলে ধরেছেন সামিরা রেড্ডি। তবে তাকে রুপালি পর্দায় দেখা যায়না বেশ কয়েক বছর হয়ে গেলো। সমীরা এঁখন তাই পাকা গৃহবধূ। গালে ব্রণ, মাথায় পাকা চুল আর একেবারে নো মেকাপ লুকে তিনি এখন ইউটিউবের কনটেন্ট ক্রিয়েটর। তবে জেনে রাখা ভালো যে তাকে বলিউড বিদায় দেয়নি তিনি নিয়েছেন ইচ্ছে বিদায়। সম্প্রতি তিনি এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন যে ৪২ বছর বয়সে এসে তিনি নিজেকে নিয়েছেন নতুন করে খুঁজে। তিনি জানিয়েছেন যে বলিউড ছেড়ে আসার পর আগের থেকেও এখন তিনি বেশি স্বাধীন।

সমীরা বিয়ের পর প্রথম মা হন ২০১৫ সালে। তবে মা হওয়ার পর তিনি কিছু সময়ের জন্য চলে গিয়েছিলেন অবসাদে। হঠাৎ করেই তার চলে আসে শারীরিক পরবর্তন। ক্রমশ ওজন বেড়ে যাওয়া তাকে করে তুলেছিল বিচলিত। তবে তিনি টানা দুই বছর পর করেছেন কামব্যাক। তবে তিনি বড় পর্দায় নয় কাম ব্যাক করেছেন ইউটিউবের পর্দায়।

তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় তার মেকাপহীন লুক দেখে অনেকেই তাকে আনফলো করে চলে যায়। নেটিজেনরা ও কিছু তারকা তার শরীরে এই বয়সের ছাপ মেনেনিতে পারেননি অনেকেই সরাসরি প্রশ্ন করে বসেন “হোয়াটস রঙ উইদ ইউ?”

তবে থেমে থাকেননি সমীরা তিনি তার শাশুড়িকে সাথে নিয়েই শুরু করে দেন ইউটিউব চ্যানেলস্যাসি সাসু অ্যান্ড মেসি মাম্মা।শাশুড়ি -বৌমার সম্পর্ক যে করতে ভালো হতে পারে তা সুস্মিতার সাথে তার শাশুড়ি মায়ের কেমেস্ট্রি দেখলে বোঝা যায় । সমীরা তুলে ধরেন তার টিনেজার থেকে গৃহবধূ হয়ে ওঠার জার্নি সেই সাথে তিনি নিজেকে মেলে ধরেন এক অন্যরূপে সেই রূপে তিনি যেন একজন তারকা নন পাশের বাড়ির মেয়ে। যিনি বিয়ের পর শাশুড়ি মায়ের সাথে রান্না ঘরে করছেন রান্না, বাচ্চার ন্যাপি পরিষ্কার করছেন আর সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় আসতেই ভাইরাল হয়ে যায়।

তারপর তাকে যখন প্রশ্ন করা হয় তিনি কি বলিউডকে মিস করছেন ? সেই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন “না। এখন যে ভালবাসা পাচ্ছি আগে তো পাইনি। অভিনেতা হিসেবে সব সময় ছুটে বেড়াতাম। কী যেন হারানোর ভয় থাকত সব সময়। আমার শরীর, গ্ল্যামার সব কিছু নিয়েই কাজ করত চূড়ান্ত এক নিরাপত্তাহীনতা। এখন সবটাই একা হাতে। একা একাই ভিডিয়ো বানাই। এডিট করি। বাচ্চাদের সঙ্গে সময় কাটাই।”

সেই সাথে তিনি ফের বলিউডে ফেরার ইঙ্গিতও দিয়েছেন, তবে আপাতত তিনি স্বাধীন ভাবে কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিসেবেই কাজ করতে চান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button