নিউজরাজ্য

‘আমার ৭ বছর ফিরিয়ে দাও’, শ্বশুরবাড়ির সামনে এসে অভাগা স্বামীর চিৎকার ও ধর্ণা

সাধারণত আমরা দেখি স্বামীর সাথে সংসার করতে চেয়ে শশুড়বাড়ির সামনে ধর্ণা দেয় তার স্ত্রী। কিন্তু স্ত্রীর জন্য স্বামীর অভিনব উপায়ে ধর্ণা খুব কম দেখা যায়। আর সেই ঘটনা ঘটলে তা মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়।

পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় অশোক নগরে ঘটেছে এমনি ঘটনা। প্ল্যাকার্ড নিয়ে বাইকে বসে স্ত্রীর বাড়ির সামনেই অভিনব প্রতিবাদে বসলেন স্বামী। আর সেই ঘটনায় অবাক হয়ে যায় স্থানীয় বাসিন্দারা। বাসিন্দারা স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে কাকে সমর্থন করবেন সেই নিয়ে তারা ভেবে কুল পাচ্ছে না।

জানাগেছে ওই যুবকের নাম হলো সৌমেন দত্ত তার বাড়ি অশোক নগরের মানিক তলাতে। তার সাথে দেবীনগরের গার্গীর সাথে দীর্ঘ ৭ বছরের প্রেমনের সম্পর্ক। তাদের দুজনের সম্পর্ক নিয়ে শুরু থেকেই আপত্তি ছিল গার্গীর বাড়ির লোকেদের। বাড়ির লোকের অমত থাকার কারণেই সেই সময় গার্গী নিজেই রেজিস্ট্রি বিয়ে করার প্রস্তাব দেন সৌমেন কে। তারপর কয়েক বছর আগে তাদের আইনি প্রক্রিয়ায় হয়ে যায় রেজিস্ট্রি ম্যারেজ। কিন্তু এবার মঞ্চে না তার মেয়ের বাড়ির লোক তাকে আটকে রেখেছেন। স্ত্রীকে চোখের দেখাও দেখতে দিচ্ছেনা শশুর বাড়ির লোক তাই শশুর বাড়ির সামনেই প্রতিবাদী ধর্নায় বসেছেন ওই যুবক। ধর্নায় বসে তার দাবি বৌ ফেরত চাই নয়তো ফিরিয়ে দাও আমার ৭ বছর।

অপরদিকে গার্গীর পরিবার আঙ্গুল তুলেছে সৌমেনের দিকেই তারা জানিয়েছেন যে তাদের বাড়ির মেয়েকে ভুলিয়ে রেজিস্ট্রি করেছে সৌমেন। সৌমেন মাত্র উচ্চমাধ্যমিক পাশ আর সেরকম কোনও রোজগার সে করে না। তারা তাদের মেয়ের সাথে সৌমেনের সম্পর্ক মানেননা। গার্গী এখন পড়াশোনাতে ব্যস্ত সে ভালো করে পড়াশুনা করে চাকরি করবে বলে পরিকল্পনা করছে। সৌমেনের সাথে গার্গীর জীবন কোনোভাবেই মিলবে না।

তবে শশুর বাড়ির প্রত্যাখ্যান সৌমেনের দাবি ‘তাহলে আমার জীবনের সাত বছর ফিরিয়ে দিতে হবে। কোনো মহিলার সঙ্গে এমন ঘটলে যেমন ব্যবস্থা নেয়া হয়। আমার ক্ষেত্রেও তেমন ব্যবস্থা নিতে হবে। আমার ন্যায্য বিচার চাই।’

সৌমেন আরও দাবি করে জানায় যে মোবাইলে গার্গীর সাথে তাকে কথা বলতে দেওয়া হচ্ছে না। এমনকি গার্গীর মা ও ভাই তাকে ফোন করে দিচ্ছে হুমকি। তারা গার্গীর সাথে তার সাত বছরের সম্পর্ক ও রেজিস্ট্রি বিয়ের বিষয়েও সরাসরি করছে অস্বীকার।

Back to top button