লাইফস্টাইল

আপনি কি ওজন কমাতে ওয়ার্ক আউট করছেন? তবে ওজন বাড়িয়ে ফেলছেন না তো! দেখেনিন

অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে ছিপছিপে হতে ব্যায়াম অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। তবে কী ব্যায়াম করছেন, কখন করছেন, আপনার শরীরের জন্য উপযোগী ব্যায়াম করছেন কিনা এবং ব্যায়াম করা ছাড়াও সারাদিন আর কী কী করছেন, এই সবই ওজন কমানোর জরুরি। ভুল ব্যায়াম ভুল পদ্ধতিতে করলে ওজন কমার বদলে উল্টে বেড়ে যেতে পারে।

দেখে নিন কখন কখন ব্যায়াম করেও ওজন বেড়ে যেতে পারে…

ব্যায়াম করলে শরীরের ক্যালোরি বার্ন হয়, এটা তো আমরা সবাই জানি। তার সঙ্গে ব্যায়াম করলে আমাদের শরীরের মাসল মাসও বাড়ে। মাসল মাস বাড়লেও কিন্তু ওজন বাড়ে। দু-এক মাস ব্যায়াম করার পরে এই ওজন বৃদ্ধির ব্যাপারটা অনেকের সঙ্গেই হয়। তাই কোনও পেশাদার ট্রেনারের কাছে ব্যায়াম করলে এই অতিরিক্ত ওজন বাড়ার সমস্যা নিয়ন্ত্রণে আসে।
সকালে এক ঘণ্টা ওয়ার্ক আউট করে সারাদিন শারীরিক পরিশ্রমে কাজ আর কিছু নেই? তাহলেও কিন্তু ওজন বাড়তে পারে আপনার। আপনি যদি দিনের বেশিরভাগ সময়টা সেডেন্টারি লাইফ স্টাইলে কাটান, তাহলে সকালের কিছুক্ষণ ব্যায়াম ওজন কমানোর পক্ষে যথেষ্ট নয়। বরং উল্টে ওজন বেড়ে যেতে পারে। তাই মাঝে মাঝে উঠে একটু পায়চারি করা বা সিঁড়ি দিয়ে ওঠানাম করা প্রয়োজন।
আপনার ওয়ার্ক আউট রুটিন থেকে যতটা ক্যালোরি বার্ন হচ্ছে বলে আপনার ধারণা, অনেক সময় তার থেকে কম হয়। কিন্তু আপনার হিসেবে যে ক্যালোরি বার্ন হচ্ছে, সেই হিসেবে আপনি খাবার খাচ্ছেন। এই খাবার অতিরিক্ত ক্যালোরি হিসেবে আপনার শরীরে জমছে এবং ফ্যাটে পরিণত হচ্ছে। তাই কী কী ওয়ার্ক আউট করবেন, তা ঠিক করার আগে সঠিক ভাবে ক্যালোরি কাউন্ট করা শিখে নিন।
গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে পুরুষ ও মহিলাদের শরীরে ওয়ার্ক আউটের পর ভিন্ন ভাবে প্রতিক্রিয়া জানায়। মহিলাদের শরীরে পুরুষদের তুলনায় তাড়াতাড়ি ফ্যাট জমে এবং ওয়ার্ক আউটের পর মহিলাদের বেশি ক্ষিদে পায়। সেই কারণে অনেক সময় মহিলারা ওয়ার্ক আউট সেশনের পর অতিরিক্ত খেয়ে ফেলেন। এর ফলে তাঁদের ওজন বেড়ে যেতে পারে। আবার যে ব্যায়াম পুরুষের জন্য উপযোগী, মহিলারা তা করলে লাভ বিশেষ হবে না। আবার মহিলাদের জন্য উপযোগী ব্যায়াম পুরুষরা করলে ক্যালোরি বার্ন কম হবে।
ওয়ার্ক আউটের পরে কী খাচ্ছেন, সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। খুব হেভি ওয়ার্ক আউট করেন যাঁরা, তাঁদের জন্য সাপ্লিমেন্টও জরুরি। কিন্তু এর থেকেও ওজন বাড়তে পারে। আপনি যা খাচ্ছেন, তার মধ্যে কতটা কার্বোহাইড্রেট রয়েছে, সেদিকে অবশ্যই খেয়াল রাখুন। অনেক সাপ্লিমেন্ট এবং এনার্জি ড্রিংকস-এ গ্লাইকোজেন থাকে। এটি শরীরে জলের পরিমাণ বাড়ায়। এর ফলেও ওজন বেড়ে যেতে পারে। তাই ওয়ার্ক আউটের পরে খাওয়ার জন্য সঠিক এনার্জি ড্রিংক এবং সাপ্লিমেন্ট বেছে নিন।

Back to top button